Surah Mumtahanah (60) The Women who is Examined

 Surah Mumtahanah

Assalamu walaikum brothers and sisters, if you want to know about Surah Mumtahanah or you want to know the Surah Mumtahanah in English or Surah Mumtahanah in Bangla then you are in the right place. Here we learn about the  meaning of  Surah Mumtahanah in three different languages Insallah

Surah Mumtahanah


Surah Mumtahanah in Arabic

بِسْمِ اللَّهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ
1. يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا لَا تَتَّخِذُوا عَدُوِّي وَعَدُوَّكُمْ أَوْلِيَاءَ تُلْقُونَ إِلَيْهِمْ بِالْمَوَدَّةِ وَقَدْ كَفَرُوا بِمَا جَاءَكُمْ مِنَ الْحَقِّ يُخْرِجُونَ الرَّسُولَ وَإِيَّاكُمْ ۙ أَنْ تُؤْمِنُوا بِاللَّهِ رَبِّكُمْ إِنْ كُنْتُمْ خَرَجْتُمْ جِهَادًا فِي سَبِيلِي وَابْتِغَاءَ مَرْضَاتِي ۚ تُسِرُّونَ إِلَيْهِمْ بِالْمَوَدَّةِ وَأَنَا أَعْلَمُ بِمَا أَخْفَيْتُمْ وَمَا أَعْلَنْتُمْ ۚ وَمَنْ يَفْعَلْهُ مِنْكُمْ فَقَدْ ضَلَّ سَوَاءَ السَّبِيلِ
2. إِنْ يَثْقَفُوكُمْ يَكُونُوا لَكُمْ أَعْدَاءً وَيَبْسُطُوا إِلَيْكُمْ أَيْدِيَهُمْ وَأَلْسِنَتَهُمْ بِالسُّوءِ وَوَدُّوا لَوْ تَكْفُرُونَ
3. لَنْ تَنْفَعَكُمْ أَرْحَامُكُمْ وَلَا أَوْلَادُكُمْ ۚ يَوْمَ الْقِيَامَةِ يَفْصِلُ بَيْنَكُمْ ۚ وَاللَّهُ بِمَا تَعْمَلُونَ بَصِيرٌ
4. قَدْ كَانَتْ لَكُمْ أُسْوَةٌ حَسَنَةٌ فِي إِبْرَاهِيمَ وَالَّذِينَ مَعَهُ إِذْ قَالُوا لِقَوْمِهِمْ إِنَّا بُرَآءُ مِنْكُمْ وَمِمَّا تَعْبُدُونَ مِنْ دُونِ اللَّهِ كَفَرْنَا بِكُمْ وَبَدَا بَيْنَنَا وَبَيْنَكُمُ الْعَدَاوَةُ وَالْبَغْضَاءُ أَبَدًا حَتَّىٰ تُؤْمِنُوا بِاللَّهِ وَحْدَهُ إِلَّا قَوْلَ إِبْرَاهِيمَ لِأَبِيهِ لَأَسْتَغْفِرَنَّ لَكَ وَمَا أَمْلِكُ لَكَ مِنَ اللَّهِ مِنْ شَيْءٍ ۖ رَبَّنَا عَلَيْكَ تَوَكَّلْنَا وَإِلَيْكَ أَنَبْنَا وَإِلَيْكَ الْمَصِيرُ
5. رَبَّنَا لَا تَجْعَلْنَا فِتْنَةً لِلَّذِينَ كَفَرُوا وَاغْفِرْ لَنَا رَبَّنَا ۖ إِنَّكَ أَنْتَ الْعَزِيزُ الْحَكِيمُ
6. لَقَدْ كَانَ لَكُمْ فِيهِمْ أُسْوَةٌ حَسَنَةٌ لِمَنْ كَانَ يَرْجُو اللَّهَ وَالْيَوْمَ الْآخِرَ ۚ وَمَنْ يَتَوَلَّ فَإِنَّ اللَّهَ هُوَ الْغَنِيُّ الْحَمِيدُ
7. عَسَى اللَّهُ أَنْ يَجْعَلَ بَيْنَكُمْ وَبَيْنَ الَّذِينَ عَادَيْتُمْ مِنْهُمْ مَوَدَّةً ۚ وَاللَّهُ قَدِيرٌ ۚ وَاللَّهُ غَفُورٌ رَحِيمٌ
8. لَا يَنْهَاكُمُ اللَّهُ عَنِ الَّذِينَ لَمْ يُقَاتِلُوكُمْ فِي الدِّينِ وَلَمْ يُخْرِجُوكُمْ مِنْ دِيَارِكُمْ أَنْ تَبَرُّوهُمْ وَتُقْسِطُوا إِلَيْهِمْ ۚ إِنَّ اللَّهَ يُحِبُّ الْمُقْسِطِينَ
9. إِنَّمَا يَنْهَاكُمُ اللَّهُ عَنِ الَّذِينَ قَاتَلُوكُمْ فِي الدِّينِ وَأَخْرَجُوكُمْ مِنْ دِيَارِكُمْ وَظَاهَرُوا عَلَىٰ إِخْرَاجِكُمْ أَنْ تَوَلَّوْهُمْ ۚ وَمَنْ يَتَوَلَّهُمْ فَأُولَٰئِكَ هُمُ الظَّالِمُونَ
10. يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا إِذَا جَاءَكُمُ الْمُؤْمِنَاتُ مُهَاجِرَاتٍ فَامْتَحِنُوهُنَّ ۖ اللَّهُ أَعْلَمُ بِإِيمَانِهِنَّ ۖ فَإِنْ عَلِمْتُمُوهُنَّ مُؤْمِنَاتٍ فَلَا تَرْجِعُوهُنَّ إِلَى الْكُفَّارِ ۖ لَا هُنَّ حِلٌّ لَهُمْ وَلَا هُمْ يَحِلُّونَ لَهُنَّ ۖ وَآتُوهُمْ مَا أَنْفَقُوا ۚ وَلَا جُنَاحَ عَلَيْكُمْ أَنْ تَنْكِحُوهُنَّ إِذَا آتَيْتُمُوهُنَّ أُجُورَهُنَّ ۚ وَلَا تُمْسِكُوا بِعِصَمِ الْكَوَافِرِ وَاسْأَلُوا مَا أَنْفَقْتُمْ وَلْيَسْأَلُوا مَا أَنْفَقُوا ۚ ذَٰلِكُمْ حُكْمُ اللَّهِ ۖ يَحْكُمُ بَيْنَكُمْ ۚ وَاللَّهُ عَلِيمٌ حَكِيمٌ
11. وَإِنْ فَاتَكُمْ شَيْءٌ مِنْ أَزْوَاجِكُمْ إِلَى الْكُفَّارِ فَعَاقَبْتُمْ فَآتُوا الَّذِينَ ذَهَبَتْ أَزْوَاجُهُمْ مِثْلَ مَا أَنْفَقُوا ۚ وَاتَّقُوا اللَّهَ الَّذِي أَنْتُمْ بِهِ مُؤْمِنُونَ
12. يَا أَيُّهَا النَّبِيُّ إِذَا جَاءَكَ الْمُؤْمِنَاتُ يُبَايِعْنَكَ عَلَىٰ أَنْ لَا يُشْرِكْنَ بِاللَّهِ شَيْئًا وَلَا يَسْرِقْنَ وَلَا يَزْنِينَ وَلَا يَقْتُلْنَ أَوْلَادَهُنَّ وَلَا يَأْتِينَ بِبُهْتَانٍ يَفْتَرِينَهُ بَيْنَ أَيْدِيهِنَّ وَأَرْجُلِهِنَّ وَلَا يَعْصِينَكَ فِي مَعْرُوفٍ ۙ فَبَايِعْهُنَّ وَاسْتَغْفِرْ لَهُنَّ اللَّهَ ۖ إِنَّ اللَّهَ غَفُورٌ رَحِيمٌ
13. يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا لَا تَتَوَلَّوْا قَوْمًا غَضِبَ اللَّهُ عَلَيْهِمْ قَدْ يَئِسُوا مِنَ الْآخِرَةِ كَمَا يَئِسَ الْكُفَّارُ مِنْ أَصْحَابِ الْقُبُورِ

 

Surah Mumtahanah in English

Madani Surah, Verse- 13; Section- 2

 

In the name of Allah, Most Gracious, Most Merciful.

Section- 1

1.    O ye who believe! Take not my enemies and yours as friends (or protectors),- offering them (your) love, even though they have rejected the Truth that has come to you, and have (on the contrary) driven out the Prophet and yourselves (from your homes), (simply) because ye believe in Allah your Lord! If ye have come out to strive in My Way and to seek My Good Pleasure, (take them not as friends), holding secret converse of love (and friendship) with them: for I know full well all that ye conceal and all that ye reveal. And any of you that does this has strayed from the Straight Path.

2.    If they were to get the better of you, they would behave to you as enemies, and stretch forth their hands and their tongues against you for evil: and they desire that ye should reject the Truth.

3.    Of no profit to you will be your relatives and your children on the Day of Judgment: He will judge between you: for Allah sees well all that ye do.

4.    There is for you an excellent example (to follow) in Abraham and those with him, when they said to their people: "We are clear of you and of whatever ye worship besides Allah: we have rejected you, and there has arisen, between us and you, enmity and hatred for ever,- unless ye believe in Allah and Him alone": But not when Abraham said to his father: "I will pray for forgiveness for you, though I have no power (to get) aught on your behalf from Allah." (They prayed): "Our Lord! in You do we trust, and to You do we turn in repentance: to You is (our) Final Goal.

5.    "Our Lord! Make us not a (test and) trial for the Unbelievers, but forgive us, our Lord! for You art the Exalted in Might, the Wise."

6.    There was indeed in them an excellent example for you to follow,- for those whose hope is in Allah and in the Last Day. But if any turn away, truly Allah is Free of all Wants, Worthy of all Praise.

Section- 2

7.    It may be that Allah will grant love (and friendship) between you and those whom ye (now) hold as enemies. For Allah has power (over all things); And Allah is Oft-Forgiving, Most Merciful.

8.    Allah forbids you not, with regard to those who fight you not for (your) Faith nor drive you out of your homes, from dealing kindly and justly with them: for Allah loves those who are just.

9.    Allah only forbids you, with regard to those who fight you for (your) Faith, and drive you out of your homes, and support (others) in driving you out, from turning to them (for friendship and protection). It is such as turn to them (in these circumstances), that do wrong.

10. O ye who believe! When there come to you believing women refugees, examine (and test) them: Allah knows best as to their Faith: if ye ascertain that they are Believers, then send them not back to the Unbelievers. They are not lawful (wives) for the Unbelievers, nor are the (Unbelievers) lawful (husbands) for them. But pay the Unbelievers what they have spent (on their dower), and there will be no blame on you if ye marry them on payment of their dower to them. But hold not to the guardianship of unbelieving women: ask for what ye have spent on their dowers, and let the (Unbelievers) ask for what they have spent (on the dowers of women who come over to you). Such is the command of Allah: He judges (with justice) between you. And Allah is Full of Knowledge and Wisdom.

11. And if any of your wives deserts you to the Unbelievers, and ye have an accession (by the coming over of a woman from the other side), then pay to those whose wives have deserted the equivalent of what they had spent (on their dower). And fear Allah, in Whom ye believe.

12. O Prophet! When believing women come to you to take the oath of fealty to you, that they will not associate in worship any other thing whatever with Allah, that they will not steal, that they will not commit adultery (or fornication), that they will not kill their children, that they will not utter slander, intentionally forging falsehood, and that they will not disobey you in any just matter,- then do you receive their fealty, and pray to Allah for the forgiveness (of their sins): for Allah is Oft-Forgiving, Most Merciful.

13. O ye who believe! Turn not (for friendship) to people on whom is the Wrath of Allah, of the Hereafter they are already in despair, just as the Unbelievers are in despair about those (buried) in graves.

 <<Previous Surah>>      << Home Page>>        <<Next Surah>>

Surah Mumtahanah in English

মাদানী সূরা, আয়াত- 13; রুকু- 2

পরম করুণাময় অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে

রুকূ

. হে ঈমানদার ব্যক্তিরা! তােমরা (কখনাে) আমার তােমাদের শত্রুদের নিজেদের বন্ধু হিসেবে গ্রহণ করাে না। এটা কেমন কথা যে) তােমরা তাদের প্রতি বন্ধুত্ব দেখাচ্ছাে, (অথচ) তােমাদের কাছে যে সত্য (দ্বীন) এসেছে তারা তা অস্বীকার করছে, তারা আল্লাহর রাসূল এবং তােমাদের- তােমাদের জন্মভূমি থেকে বের করে দিচ্ছে শুধু কারণে, তােমরা তােমাদের প্রভু আল্লাহর ওপর ঈমান এনেছে; যদি তােমরা (সত্যিই) আমার পথে জিহাদ আমার সন্তুষ্টি অর্জনের লক্ষ্যে (ঘরবাড়ি থেকে) বেরিয়ে থাকো, তাহলে কিভাবে তােমরা চুপে চুপে তাদের সাথে (আবার) বন্ধুত্ব করতে পারাে! তােমরা যে কাজ গােপনে করাে আর যে কাজ প্রকাশ্যে করাে আমি তাসম্যক অবগত আছি; তােমাদের মধ্যে যদি কেউ (শত্রুদের সাথে গােপনে বন্ধুত্ব গড়ার) কাজটি করে, তাহলে (বুঝতে হবে) সে (দ্বীনের) সরল পথ থেকে বিচ্যুত হয়ে গেছে

. অথচ এরা যদি তােমাদের কাবুকরতে পারে, তাহলে এরা তােমাদের শত্রুতে পরিণত হবে (শুধু তাই নয়), এরা নিজেদের হাত কথা দিয়ে তােমাদের ক্ষতিসাধন করবে, (আসলে) এরা তাে এটাই চায় যে, তােমরাও তাদের মতাে কাফের হয়ে যাও;

. কিয়ামতের দিন তােমাদের আত্মীয় স্বজন সন্তান-সন্ততি তােমাদের কোনােই উপকারে আসবে না, সেদিন আল্লাহ পাক তােমাদের মাঝে বিচার ফয়সালা করে দেবেন; তােমরা যা করাে আল্লাহ পাক তার সব কিছুই দেখেন

. তােমাদের জন্যে ইবরাহীম তার অনুসারীদের (ঘটনার) মাঝে রয়েছে (অনুকরণযােগ্য) আদর্শ, যখন তারা তাদের জাতিকে বলেছিল, তােমাদের সাথে এবং তােমরা যাদের আল্লাহর পরিবর্তে উপাসনা করাে তাদের সাথে আমাদের কোনােই সম্পর্ক নেই, আমরা তােমাদের সব দেবতাদের অস্বীকার করি। (একারণে) আমাদের তােমাদের মাঝে চিরদিনের জন্যে এক শত্রুতা বিদ্বেষ শুরু হয়ে গেলাে-যতদিন তােমরা একমাত্র আল্লাহ পাককে মা'বুদ (বলে) স্বীকার না করবে, কিন্তু ( ব্যাপারে) ইবরাহীমের পিতার উদ্দেশ্যে বলা কথাটি (ব্যতিক্রম, যখন সে বলেছিলাে), আমি আপনার জন্যে (আল্লাহর দরবারে) নিশ্চয়ই ক্ষমা প্রার্থনা করবাে, অবশ্যআল্লাহর নিকট থেকে (ক্ষমা আদায় করার) আমার কোনােই এখতিয়ার নেই; (ইবরাহীম তার অনুসারীরা বললাে,) হে আমাদের প্রভু! আমরা তাে কেবল আপনার ওপর ভরসা করেছি এবং আমরা আপনার দিকেই ফিরে এসেছি এবং (আমাদের) তাে আপনার দিকেই ফিরে যেতে হবে

. হে আমাদের প্রভু! তুমি আমাদের (জীবনকে) কাফেরদের নিপীড়নের নিশানা বানিয়াে না, হে আমাদের প্রভু! তুমি আমাদের পাপ খাতা ক্ষমা করে দাও, নিশ্চয়ই তুমি পরাক্রমশালী পরম কুশলী

. তাদের (জীবন চরিত্রের) মাঝে নিশ্চয়ই আমাদের জন্যে এবং সে লােকের জন্যে (অনুকরণযােগ্য) আদর্শ রয়েছে, যে ব্যক্তি আল্লাহ পাক এবং শেষ বিচারের দিনে কিছু পাবার আশা করে; আর যদি কেউ আল্লাহ পাক থেকে মুখ ফিরিয়ে নেয় (সে যেন জেনে রাখে), আল্লাহ পাক কারাে মুখাপেক্ষী নন এবং তিনি সকল প্রশংসার প্রভু

রুকূ

. এটা অসম্ভব কিছু নয়, আল্লাহ পাক তােমাদের এবং যাদের সাথে আজ তােমাদের শত্রুতা সৃষ্টি হয়েছে তাদের মাঝে (একদিন) বন্ধুত্ব সৃষ্টি করে দেবেন; আল্লাহ পাক তাে (সবই) করতে পারেন; আল্লাহ পাক ক্ষমাশীল পরম দয়ালু

. যারা দ্বীনের ব্যাপারে তােমাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেনি এবং কখনাে তােমাদের নিজেদের বাড়িঘর থেকেও বের করে দেয়নি, তাদের প্রতি দয়া দেখাতে তাদের সাথে ন্যায় আচরণ করতে আল্লাহ পাক কখনাে নিষেধ করেন; নিশ্চয়ই আল্লাহ পাক ন্যায়পরায়ণদের ভালােবাসেন

. আল্লাহ পাক কেবল তাদের সাথেই বন্ধুত্ব করতে নিষেধ করেন যারা দ্বীনের ব্যাপারে তােমাদের সাথে যুদ্ধ করেছে এবং (একই কারণে) তােমাদের- তারা ভিটেমাটি থেকে উচ্ছেদ করে দিয়েছে এবং তােমাদের উচ্ছেদ করার ব্যাপারে একে অন্যকে সাহায্য-সহযােগিতা করেছে, (এর পরও) যারা তাদের সাথে বন্ধুত্ব করবে তারা নিশ্চয়ই অত্যাচারী

১০. হে ঈমানদার ব্যক্তিরা! যখন কোনাে ঈমানদার নারী হিজরত করে তােমাদের কাছে আসে, তখন তােমরা তাদের (ঈমানের ব্যাপারটাভালাে করে) পরীক্ষা করে নিয়াে; (যদিও) তাদের ঈমানের বিষয়টা আল্লাহ পাকই ভালাে জানেন, অতঃপর একবার যদি তােমরা জানতে পারাে তারা (আসলেই) ঈমানদার, তাহলে কোনাে অবস্থায়ই তাদের তােমরা কাফেরদের কাছে ফেরত পাঠাবে না; কারণ (যারা ঈমানদার নারী) তারা তাদের (কাফের স্বামীদের) জন্যে (আর কোনাে অবস্থায়ই) হালালনয় এবং (যারা কাফের) তারাও তাদের (ঈমানদার স্ত্রীদের জন্যে হালাল নয়; (তবে এমন হলে) তােমরা তাদের (আগের স্বামীদের দেয়া) মােহরানার অংশ ফেরত দিয়ে দিয়াে; অতঃপর তােমরা (কেউ) যদি তাদের বিয়ে করাে, তাহলে এতে তােমাদের কোনাে পাপ হবে না, অবশ্য তােমাদের ( জন্যে) তাদের মােহর আদায় করে দিতে হবে; (একইভাবে) তােমরাও কাফের নরীদের সাথে (দাম্পত্য) সম্পর্ক বজায় রেখাে না, ( ক্ষেত্রে) তােমরা তাদের যে মােহর দিয়েছাে তা তাদের থেকে চেয়ে নাও, একই নিয়মে (যারা কাফের স্বামী) তারা তাদের (মুসলমান স্ত্রীদের) যে মােহর দিয়েছে তাও ফেরত চেয়ে নেবে; এটাই হলাে আল্লাহর বিধান; এভাবেই তিনি তােমাদের মাঝে ( বিষয়টির) ফয়সালা করে দিয়েছেন; আর আল্লাহ পাক মহাজ্ঞানী পরম কুশলী

১১. তােমাদের স্ত্রীদের মধ্যে কেউ যদি তােমাদের হাতছাড়া হয়ে কাফেরদের কাছে চলে যায় (পরে যখন সুযােগ আসবে), তখন যারা তাদের হাতছাড়া হয়ে গেছে তাদের তারা যে পরিমাণ মােহর দিয়েছে তােমরাও তার সমপরিমাণ মােহর আদায় করে দেবে; তােমরা সে আল্লাহ পাককে ভয় করাে, যার ওপর তােমরা ঈমান এনেছাে

১২. হে নবী! যখন কোনাে ঈমানদার নারী আপনার কাছে আসবে এবং এই বলে আপনার কাছে আনুগত্যের কসম করবে, তারা আল্লাহর সাথে কাউকে শরীক করবেনা, চুরি করবে না, ব্যভিচার করবে না, নিজেদের সন্তানদের হত্যা করবে না, নিজ হাত নিজ পায়ের মাঝখান সংক্রান্ত (বিষয়- তথা অন্যের ঔরসজাত সন্তানকে নিজের স্বামীর বলে দাবী করার) মারাত্মক অভিযােগে অভিযুক্ত হয়ে আসবে না এবং কোনাে সকাজে আপনার নাফরমানী করবে না, তাহলে আপনি তাদের আনুগত্য গ্রহণ করুন এবং তাদের (পূর্বের কার্যকলাপের) জন্যে আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করুন; আল্লাহ পাক নিশ্চয়ই ক্ষমাশীল পরম দয়ালু

১৩. হে ঈমানদার ব্যক্তিরা! আল্লাহ পাক যে জাতির ওপর গযব দিয়েছেন তাদের সাথে বন্ধুত্ব করাে না, তারা তাে শেষ বিচারের দিন সম্পর্কে সেভাবেই নিরাশ হয়ে পড়েছে, যেমনিভাবে কাফেররা (তাদের) কবরের সাথীদের ব্যাপারে হতাশ হয়ে গেছে

<<Previous Surah>>      << Home Page>>        <<Next Surah>>

*Inspired by the Book of Abdullah Yusuf Ali
Post a Comment (0)
Previous Post Next Post