Surah Mujadilah (68) The Pleading Woman

 Surah Mujadilah

Assalamu walaikum brothers and sisters, if you want to know about Surah Mujadilah or you want to know the Surah Mujadilah in English or Surah Mujadilah in Bangla then you are in the right place. Here we learn about the  meaning of  Surah Mujadilah in three different languages Insallah

Surah Mujadilah


Surah Mujadilah in Arabic

بِسْمِ اللَّهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ
1. قَدْ سَمِعَ اللَّهُ قَوْلَ الَّتِي تُجَادِلُكَ فِي زَوْجِهَا وَتَشْتَكِي إِلَى اللَّهِ وَاللَّهُ يَسْمَعُ تَحَاوُرَكُمَا ۚ إِنَّ اللَّهَ سَمِيعٌ بَصِيرٌ
2. الَّذِينَ يُظَاهِرُونَ مِنْكُمْ مِنْ نِسَائِهِمْ مَا هُنَّ أُمَّهَاتِهِمْ ۖ إِنْ أُمَّهَاتُهُمْ إِلَّا اللَّائِي وَلَدْنَهُمْ ۚ وَإِنَّهُمْ لَيَقُولُونَ مُنْكَرًا مِنَ الْقَوْلِ وَزُورًا ۚ وَإِنَّ اللَّهَ لَعَفُوٌّ غَفُورٌ
3. وَالَّذِينَ يُظَاهِرُونَ مِنْ نِسَائِهِمْ ثُمَّ يَعُودُونَ لِمَا قَالُوا فَتَحْرِيرُ رَقَبَةٍ مِنْ قَبْلِ أَنْ يَتَمَاسَّا ۚ ذَٰلِكُمْ تُوعَظُونَ بِهِ ۚ وَاللَّهُ بِمَا تَعْمَلُونَ خَبِيرٌ
4. فَمَنْ لَمْ يَجِدْ فَصِيَامُ شَهْرَيْنِ مُتَتَابِعَيْنِ مِنْ قَبْلِ أَنْ يَتَمَاسَّا ۖ فَمَنْ لَمْ يَسْتَطِعْ فَإِطْعَامُ سِتِّينَ مِسْكِينًا ۚ ذَٰلِكَ لِتُؤْمِنُوا بِاللَّهِ وَرَسُولِهِ ۚ وَتِلْكَ حُدُودُ اللَّهِ ۗ وَلِلْكَافِرِينَ عَذَابٌ أَلِيمٌ
5. إِنَّ الَّذِينَ يُحَادُّونَ اللَّهَ وَرَسُولَهُ كُبِتُوا كَمَا كُبِتَ الَّذِينَ مِنْ قَبْلِهِمْ ۚ وَقَدْ أَنْزَلْنَا آيَاتٍ بَيِّنَاتٍ ۚ وَلِلْكَافِرِينَ عَذَابٌ مُهِينٌ
6. يَوْمَ يَبْعَثُهُمُ اللَّهُ جَمِيعًا فَيُنَبِّئُهُمْ بِمَا عَمِلُوا ۚ أَحْصَاهُ اللَّهُ وَنَسُوهُ ۚ وَاللَّهُ عَلَىٰ كُلِّ شَيْءٍ شَهِيدٌ
7. أَلَمْ تَرَ أَنَّ اللَّهَ يَعْلَمُ مَا فِي السَّمَاوَاتِ وَمَا فِي الْأَرْضِ ۖ مَا يَكُونُ مِنْ نَجْوَىٰ ثَلَاثَةٍ إِلَّا هُوَ رَابِعُهُمْ وَلَا خَمْسَةٍ إِلَّا هُوَ سَادِسُهُمْ وَلَا أَدْنَىٰ مِنْ ذَٰلِكَ وَلَا أَكْثَرَ إِلَّا هُوَ مَعَهُمْ أَيْنَ مَا كَانُوا ۖ ثُمَّ يُنَبِّئُهُمْ بِمَا عَمِلُوا يَوْمَ الْقِيَامَةِ ۚ إِنَّ اللَّهَ بِكُلِّ شَيْءٍ عَلِيمٌ
8. أَلَمْ تَرَ إِلَى الَّذِينَ نُهُوا عَنِ النَّجْوَىٰ ثُمَّ يَعُودُونَ لِمَا نُهُوا عَنْهُ وَيَتَنَاجَوْنَ بِالْإِثْمِ وَالْعُدْوَانِ وَمَعْصِيَتِ الرَّسُولِ وَإِذَا جَاءُوكَ حَيَّوْكَ بِمَا لَمْ يُحَيِّكَ بِهِ اللَّهُ وَيَقُولُونَ فِي أَنْفُسِهِمْ لَوْلَا يُعَذِّبُنَا اللَّهُ بِمَا نَقُولُ ۚ حَسْبُهُمْ جَهَنَّمُ يَصْلَوْنَهَا ۖ فَبِئْسَ الْمَصِيرُ
9. يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا إِذَا تَنَاجَيْتُمْ فَلَا تَتَنَاجَوْا بِالْإِثْمِ وَالْعُدْوَانِ وَمَعْصِيَتِ الرَّسُولِ وَتَنَاجَوْا بِالْبِرِّ وَالتَّقْوَىٰ ۖ وَاتَّقُوا اللَّهَ الَّذِي إِلَيْهِ تُحْشَرُونَ
10. إِنَّمَا النَّجْوَىٰ مِنَ الشَّيْطَانِ لِيَحْزُنَ الَّذِينَ آمَنُوا وَلَيْسَ بِضَارِّهِمْ شَيْئًا إِلَّا بِإِذْنِ اللَّهِ ۚ وَعَلَى اللَّهِ فَلْيَتَوَكَّلِ الْمُؤْمِنُونَ
11. يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا إِذَا قِيلَ لَكُمْ تَفَسَّحُوا فِي الْمَجَالِسِ فَافْسَحُوا يَفْسَحِ اللَّهُ لَكُمْ ۖ وَإِذَا قِيلَ انْشُزُوا فَانْشُزُوا يَرْفَعِ اللَّهُ الَّذِينَ آمَنُوا مِنْكُمْ وَالَّذِينَ أُوتُوا الْعِلْمَ دَرَجَاتٍ ۚ وَاللَّهُ بِمَا تَعْمَلُونَ خَبِيرٌ
12. يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا إِذَا نَاجَيْتُمُ الرَّسُولَ فَقَدِّمُوا بَيْنَ يَدَيْ نَجْوَاكُمْ صَدَقَةً ۚ ذَٰلِكَ خَيْرٌ لَكُمْ وَأَطْهَرُ ۚ فَإِنْ لَمْ تَجِدُوا فَإِنَّ اللَّهَ غَفُورٌ رَحِيمٌ
13. أَأَشْفَقْتُمْ أَنْ تُقَدِّمُوا بَيْنَ يَدَيْ نَجْوَاكُمْ صَدَقَاتٍ ۚ فَإِذْ لَمْ تَفْعَلُوا وَتَابَ اللَّهُ عَلَيْكُمْ فَأَقِيمُوا الصَّلَاةَ وَآتُوا الزَّكَاةَ وَأَطِيعُوا اللَّهَ وَرَسُولَهُ ۚ وَاللَّهُ خَبِيرٌ بِمَا تَعْمَلُونَ
14. أَلَمْ تَرَ إِلَى الَّذِينَ تَوَلَّوْا قَوْمًا غَضِبَ اللَّهُ عَلَيْهِمْ مَا هُمْ مِنْكُمْ وَلَا مِنْهُمْ وَيَحْلِفُونَ عَلَى الْكَذِبِ وَهُمْ يَعْلَمُونَ
15. أَعَدَّ اللَّهُ لَهُمْ عَذَابًا شَدِيدًا ۖ إِنَّهُمْ سَاءَ مَا كَانُوا يَعْمَلُونَ
16. اتَّخَذُوا أَيْمَانَهُمْ جُنَّةً فَصَدُّوا عَنْ سَبِيلِ اللَّهِ فَلَهُمْ عَذَابٌ مُهِينٌ
17. لَنْ تُغْنِيَ عَنْهُمْ أَمْوَالُهُمْ وَلَا أَوْلَادُهُمْ مِنَ اللَّهِ شَيْئًا ۚ أُولَٰئِكَ أَصْحَابُ النَّارِ ۖ هُمْ فِيهَا خَالِدُونَ
18. يَوْمَ يَبْعَثُهُمُ اللَّهُ جَمِيعًا فَيَحْلِفُونَ لَهُ كَمَا يَحْلِفُونَ لَكُمْ ۖ وَيَحْسَبُونَ أَنَّهُمْ عَلَىٰ شَيْءٍ ۚ أَلَا إِنَّهُمْ هُمُ الْكَاذِبُونَ
19. اسْتَحْوَذَ عَلَيْهِمُ الشَّيْطَانُ فَأَنْسَاهُمْ ذِكْرَ اللَّهِ ۚ أُولَٰئِكَ حِزْبُ الشَّيْطَانِ ۚ أَلَا إِنَّ حِزْبَ الشَّيْطَانِ هُمُ الْخَاسِرُونَ
20. إِنَّ الَّذِينَ يُحَادُّونَ اللَّهَ وَرَسُولَهُ أُولَٰئِكَ فِي الْأَذَلِّينَ
21. كَتَبَ اللَّهُ لَأَغْلِبَنَّ أَنَا وَرُسُلِي ۚ إِنَّ اللَّهَ قَوِيٌّ عَزِيزٌ
22. لَا تَجِدُ قَوْمًا يُؤْمِنُونَ بِاللَّهِ وَالْيَوْمِ الْآخِرِ يُوَادُّونَ مَنْ حَادَّ اللَّهَ وَرَسُولَهُ وَلَوْ كَانُوا آبَاءَهُمْ أَوْ أَبْنَاءَهُمْ أَوْ إِخْوَانَهُمْ أَوْ عَشِيرَتَهُمْ ۚ أُولَٰئِكَ كَتَبَ فِي قُلُوبِهِمُ الْإِيمَانَ وَأَيَّدَهُمْ بِرُوحٍ مِنْهُ ۖ وَيُدْخِلُهُمْ جَنَّاتٍ تَجْرِي مِنْ تَحْتِهَا الْأَنْهَارُ خَالِدِينَ فِيهَا ۚ رَضِيَ اللَّهُ عَنْهُمْ وَرَضُوا عَنْهُ ۚ أُولَٰئِكَ حِزْبُ اللَّهِ ۚ أَلَا إِنَّ حِزْبَ اللَّهِ هُمُ الْمُفْلِحُونَ

 

Surah Mujadilah in English

Madani Surah, Verse- 22; Section- 3

In the name of Allah, Most Gracious, Most Merciful.

1.    Allah has indeed heard (and accepted) the statement of the woman who pleads with you concerning her husband and carries her complaint (in prayer) to Allah: and Allah (always) hears the arguments between both sides among you: for Allah hears and sees (all things).

2.    If any men among you divorce their wives by Zihar (calling them mothers), they cannot be their mothers: None can be their mothers except those who gave them birth. And in fact they use words (both) iniquitous and false: but truly Allah is one that blots out (sins), and forgives (again and again).

3.    But those who divorce their wives by Zihar, then wish to go back on the words they uttered,- (It is ordained that such a one) should free a slave before they touch each other: Thus are you admonished to perform: and Allah is well-acquainted with (all) that you do.

4.    And if any has not (the wherewithal), he should fast for two months consecutively before they touch each other. But if any is unable to do so, he should feed sixty indigent ones, this, that you may show your faith in Allah and His Messenger. Those are limits (set by) Allah. For those who reject (Him), there is a grievous Penalty.

5.    Those who resist Allah and His Messenger will be humbled to dust, as were those before them: for We have already sent down Clear Signs. And the Unbelievers (will have) a humiliating Penalty,-

6.    On the Day that Allah will raise them all up (again) and show them the Truth (and meaning) of their conduct. Allah has reckoned its (value), though they may have forgotten it, for Allah is Witness to all things.

7.    Seest you not that Allah doth know (all) that is in the heavens and on earth? There is not a secret consultation between three, but He makes the fourth among them, - Nor between five but He makes the sixth,- nor between fewer nor more, but He is in their midst, where so ever they be: In the end will He tell them the truth of their conduct, on the Day of Judgment. For Allah has full knowledge of all things.

8.    Turns you not your sight towards those who were forbidden secret counsels yet revert to that which they were forbidden (to do)? And they hold secret counsels among themselves for iniquity and hostility, and disobedience to the Messenger. And when they come to you, they salute you, not as Allah salutes you, (but in crooked ways): And they say to themselves, "Why does not Allah punish us for our words?" Enough for them is Hell: In it will they burn, and evil is that destination!

9.    O you who believe! When you hold secret counsel, do it not for iniquity and hostility, and disobedience to the Prophet; but do it for righteousness and self-restraint; and fear Allah, to Whom you shall be brought back.

10. Secret counsels are only (inspired) by the Evil One, in order that he may cause grief to the Believers; but he cannot harm them in the least, except as Allah permits; and on Allah let the Believers put their trust.

11. O you who believe! When you are told to make room in the assemblies, (spread out and) make room: (ample) room will Allah provide for you. And when you are told to rise up, rise up Allah will rise up, to (suitable) ranks (and degrees), those of you who believe and who have been granted (mystic) Knowledge. And Allah is well-acquainted with all you do.

12. O you who believe! When you consult the Messenger in private, spend something in charity before your private consultation. That will be best for you, and most conducive to purity (of conduct). But if you find not (the wherewithal), Allah is Oft-Forgiving, Most Merciful.

13. Is it that you are afraid of spending sums in charity before your private consultation (with him)? If, then, you do not so, and Allah forgives you, then (at least) establish regular prayer; practice regular charity; and obey Allah and His Messenger. And Allah is well-acquainted with all that you do.

14. Turns you not your attention to those who turn (in friendship) to such as have the Wrath of Allah upon them? They are neither of you nor of them, and they swear to falsehood knowingly.

15. Allah has prepared for them a severe Penalty: evil indeed are their deeds.

16. They have made their oaths a screen (for their misdeeds): thus they obstruct (men) from the Path of Allah: therefore shall they have a humiliating Penalty.

17. Of no profit whatever to them, against Allah, will be their riches nor their sons: they will be Companions of the Fire, to dwell therein (for aye)!

18. One day will Allah raise them all up (for Judgment): then will they swear to Him as they swear to you: And they think that they have something (to stand upon). No, indeed! they are but liars!

19. The Evil One has got the better of them: so he has made them lose the remembrance of Allah. They are the Party of the Evil One. Truly, it is the Party of the Evil One that will perish!

20. Those who resist Allah and His Messenger will be among those most humiliated.

21. Allah has decreed: "It is I and My messengers who must prevail": For Allah is One full of strength, able to enforce His Will.

22. You will not find any people who believe in Allah and the Last Day, loving those who resist Allah and His Messenger, even though they were their fathers or their sons, or their brothers, or their kindred. For such He has written Faith in their hearts, and strengthened them with a spirit from Himself. And He will admit them to Gardens beneath which Rivers flow, to dwell therein (for ever). Allah will be well pleased with them, and they with Him. They are the Party of Allah. Truly it is the Party of Allah that will achieve Felicity.

<<Previous Surah>>      << Home Page>>        <<Next Surah>>

Surah Mujadilah in English

মাদানী সূরা, আয়াত- 22; রুকু- 3

পরম করুণাময় অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে

রুকূ

. (হে রাসূল!) তার কথা আল্লাহ পাক (যথাযথই) শুনেছেন, যে (মহিলা) তার স্বামীর ব্যাপারে আপনার সাথে বাদানুবাদ করছিলাে এবং নিজের অসুবিধার জন্যে আল্লাহর নিকট মুনাজাত করে যাচ্ছিলাে, (আসলে) আল্লাহ পাক আপনাদের উভয়ের কথাবার্তাই শুনছেন; নিঃসন্দেহে আল্লাহ পাক সব কিছু শােনেন এবং সব কিছু দেখেন

. তােমাদের মধ্যে যারা (তাদের মায়েদের শরীরের কোনাে অংশের সাথে  তুলনা করে) নিজ স্ত্রীদের সাথে যেহারকরে (তাদের জেনেরাখা উচিত), তাদের স্ত্রীরা কিন্তু কখনাে তাদের মা নয়; মা তাে হচ্ছে তারা, যারা তাদের জন্ম দিয়েছে; ( কাজ করে) তারা (মূলত) অন্যায় মিথ্যা কথাই বলে; (তারপরও) আল্লাহ পাক হচ্ছেন (মানুষের) পাপ মােচনকারী পরম ক্ষমাশীল

. যারা (এভাবে) তাদের স্ত্রীদের সাথেযেহার করে, অতঃপর (অনুতপ্ত হয়ে) যা কিছু বলে ফেলেছে তা থেকে ফিরে আসতে চায় (তাদের জন্যে বিধান হচ্ছে), তাদের একে অপরকে স্পর্শ করার পূর্বে একটি দাসের মুক্তি দান করা; (বিধানে)- মাধ্যমে আল্লাহ পাক তােমাদের করণীয় কি- তা বলে দিচ্ছে, (কেননা) তােমরা যা কর আল্লাহ পাক সে সম্পর্কে ভালােভাবেই জানেন

. যে ব্যক্তি (মুক্তিদানের জন্যে কোনাে দাস) পারে না (তার বিধান হচ্ছে), তাদের একে অপরকে স্পর্শ করার আগে একাধারে দুমাসের রােযা পালন (করা, স্বাস্থ্যগত কারণে) যে ব্যক্তি (রােযা রাখার) সামর্থ রাখবে না (তার বিধান হচ্ছে), ষাট জন মিসকীনকে (পেট ভরে) খাওয়ানাে; বিধান জন্যেই (তােমাদের দেয়া হচ্ছে) যেন তােমরা আল্লাহ পাক তাঁর রাসূলের ওপর ঈমান আনাে; (মনে রাখবে, যেহারের ব্যাপারে) হচ্ছে আল্লাহর নির্ধারিত সীমারেখা, যারা (এসীমা) অস্বীকার করে তাদের জন্যে রয়েছে মর্মন্তুদ শাস্তি 

. যারা আল্লাহ পাক তাঁর রাসূলের বিরুদ্ধাচরণ করে তাদের তেমনিভাবে অপদস্থ করা হবে, যেমনি করে তাদের আগে (বিদ্রোহী) লােকদের অপদস্থ করা হয়েছিলাে, আমি তাে আমার সুস্পষ্ট আয়াত অবতীর্ণ করে দিয়েছি; যারা (এসব আয়াত) অস্বীকার করে তাদের জন্যে নিশ্চয়ই অপমানকর শাস্তি থাকবে,

. যে দিন আল্লাহ পাক এদের সবাইকে পুনরায় জীবন দান করবেন তখন তাদের সবাইকে তিনি বলে দেবেন তারা কি করে এসেছে; আল্লাহ পাক সে কর্মকাণ্ডের পুংখানুপুংখ হিসাব রেখেছেন, অথচ তারা নিজেরা সে কথা ভুলে গেছে; (সেদিন) আল্লাহ পাক নিজেই তাদের সব কয়টি কাজের সাক্ষ্য প্রদান করবেন

রুকূ

. আপনি কি কখনাে এটা অনুধাবন করেন না যে, আসমানসমূহ যমীনে যা কিছু আছে আল্লাহ তা সবই জানেন; কখনাে এমন হয় না যে, তিন ব্যক্তির মধ্যে কোনাে গােপন সলাপরামর্শ হয় এবং (সেখানে) চতুর্থ হিসেবে আল্লাহ পাক উপস্থিত থাকেননা এবং পাঁচ জনের মধ্যে কোনাে গােপন পরামর্শ হয় না,যেখানে ষষ্ঠ' হিসেবে তিনি থাকেন না, ( সলা পরামর্শকারীদের সংখ্যা) তার চাইতে কম হােক কিংবা বেশী, তারা যেখানেই থাকেনা কেন, আল্লাহপাকসব সময়ই তাদের সাথে আছেন, অতঃপর কিয়ামতের দিন আল্লাহ পাক তাদের (সবাইকে) বলে দেবেন তারা কি কাজ করে এসেছে; আল্লাহ পাক সর্ববিষয়ে সম্যক অবগত রয়েছেন 

. আপনি কি তাদের লক্ষ্য করেন না, যাদের (আল্লাহ পাক তাঁর রাসূল সম্পর্কে কোনাে) গােপন কানাঘুষা করতে নিষেধ করা হয়েছিল; (কিন্তু) তারা (ঠিক) তারই পুনরাবৃত্তি করলাে করতে তাদের নিষেধ করা হয়েছিল, তারা একে অপরের সাথে সুস্পষ্ট গুনাহের কাজ, মাত্রাতিরিক্ত বাড়াবাড়ি রাসূলের নাফরমানীর ব্যাপারে কানাঘুষা করতে লাগলাে, (অথচ) এরা যখন আপনার সামনে আসে তখন আপনাকে এমনভাবে অভিবাদন জানায়, যা দিয়ে আল্লাহ পাকও আপনাকে অভিবাদন জানান না, (আর সব প্রতারণার সময়) ওরা মনে মনে বলে, আমরা যা বলছি তার জন্যে আল্লাহ পাক আমাদের কোনাে প্রকার শাস্তি দিচ্ছেন না কেন ? (আপনি তাদের বলুন,) দোযখ তাদের (শাস্তির) জন্যে যথেষ্ট, তার আগুনে (পুড়ে) তারাই দগ্ধ হবে, কত নিকৃষ্ট (হবে সেই) বাসস্থান।!  

. হে ঈমানদার ব্যক্তিরা, তােমরা যখন একে অপরের সাথে গােপনে কোনাে কথা বল তখন কখনাে কোনাে পাপাচার, সীমালঙ্ঘন রাসূলের বিরােধিতা সম্পর্কিত কথা বলাে না; বরং গােপনে কিছু বলতে হলে (সেখানে) একে অপরকে ভালাে কাজ (আল্লাহকে) ভয় করার কথাই বলাে; (সর্বোপরি) সে সর্বময় ক্ষমতার প্রভু আল্লাহকে ভয় কর, যাঁর সামনে (একদিন) তােমাদের (সবাইকে) একত্রিত করা হবে

১০. (আসলে এদের) গােপন সলাপরামর্শ তাে হচ্ছে একটা শয়তানী প্ররােচনা, যার (একমাত্র) উদ্দেশ্য হচ্ছে ঈমানদার লােকদের কষ্ট দেয়া (অথচ এরা জানে না), আল্লাহ পাকের ইচ্ছা ব্যতিরেকে তারা ঈমানদারদের বিন্দুমাত্রও কোনাে ক্ষতি সাধন করতে পারবে না; (তাই) ঈমানদারদের উচিত (সবসময়) আল্লাহর ওপরই নির্ভর করা

১১. হে ঈমানদার ব্যক্তিরা, যখন মজলিসসমূহে (একটু নড়েচড়ে) জায়গা প্রশস্ত করে দিতে তােমাদের বলা হয়, তখন তােমরা জায়গা প্রশস্ত করে দিও, (তাহলে) আল্লাহ পাকও তােমাদের জন্যে (জান্নাতে) এভাবে জায়গা প্রশস্ত করে দেবেন, (অবার) কখনাে যদি (জায়গা ছেড়ে) উঠে দাঁড়াতে বলা হয়, তাহলে উঠে দাঁড়িয়ে যেও, তােমাদের মধ্যে যারা ঈমান এনেছে এবং যাদের আল্লাহর পক্ষ থেকে জ্ঞান দেয়া হয়েছে, আল্লাহ পাক নিশ্চয়ই কিয়ামতের দিন তাদের মহামর্যাদা দান করবেন; তােমরা যা কিছু করাে আল্লাহ পাক সে ব্যাপারে পূর্ণ খবর রাখেন। 

১২. হে ঈমানদার ব্যক্তিরা! তােমরা যদি কখনাে রাসূলের সাথে একাকী কোনাে কথা বলতে চাও, তাহলে (অপ্রয়ােজনীয় কথাবার্তা নিয়ন্ত্রণের কৌশল হিসেবে) তােমরা কিছু দান (সদকা) আদায় করে নেবে; এটা তােমাদের (সবার জন্যে মঙ্গলজনক (রাসূলের মজলিসের পরিবেশ নিয়ন্ত্রণে রাখার একটি) পবিত্রতম পন্থা, অবশ্য সদকা আদায় করার মতাে তােমরা যদি কিছু না পাও তাহলে (দুশ্চিন্তা করাে না, কেননা,)  আল্লাহ পাক ক্ষমাশীল পরম দয়ালু

১৩. তােমরা কি তােমাদের একাকী কথা বলার আগে সদকা আদায় করার আদেশে ভয় পেয়ে গেলে? যদি তােমরা তা করতে না পারাে এবং আল্লাহ পাক স্বীয় করুণা দ্বারা তােমাদের ক্ষমা করে দেন, তবে তােমরা নামায প্রতিষ্ঠা করতে থাকো, যাকাত আদায় করতে থাকো এবং (সকল কাজে সকল বিষয়ে) আল্লাহ পাক তাঁর রাসূলের আনুগত্য করতে থাকো; তােমরা যা করছে আল্লাহ পাক নিশ্চয়ই সে সম্পর্কে পূর্ণ ওয়াকেফহাল রয়েছেন

রুকূ

১৪. (হে নবী!) আপনি কি সে জাতির অবস্থা কখনাে লক্ষ্য করেননি, যারা এমন জাতির সাথে বন্ধুত্ব পাতায় যাদের ওপর আল্লাহ পাক অভিশাপ দিয়েছেন; (সুযােগ সন্ধানী) লােকেরা যেমন তােমাদের আপন নয়, (তেমনি) তারাও ওদের আপন নয়, এরা জেনে শুনে। আল্লাহর ওপর মিথ্যা কসম করে

১৫. আল্লাহ পাক তাদের জন্যে (দোযখের) কঠোর আযাব প্রস্তুত করে রেখেছেন; তারা যে কাজ করছে তা সত্যিই এক জঘন্য অপরাধের কাজ

১৬. তারা তাদের (মিথ্যা) কসমগুলােকে (নিজেদের স্বার্থ রক্ষায়) ঢাল বানিয়ে নিতাে, অতঃপর তারা মানুষদের আল্লাহর পথ থেকে ফিরিয়ে রাখতাে, অতএব, তাদের জন্যে রয়েছে) এক লাঞ্ছনাদায়ক

১৭. আল্লাহ পাকের (শস্তির) কাছ থেকে (তাদের বাঁচানাের জন্যে) সেদিন তাদের ধন সম্পদ, সন্তান-সন্ততি কোনােটাই কোনাে কাজে আসবে না; তারা তাে দেযখেরই বাসিন্দা, সেখানে তারা চিরকাল অবস্থান করবে

১৮. যেদিন আল্লাহ পাক তাদের সবাইকে পুনরুজ্জীবিত করবেন-(আশ্চর্য! সেদিনও) তারা তার সামনে ( মিথ্যা) কসম (করে দায়িত্ব মুক্তির চেষ্টা) করবে,এমনি করে তারা (আজ স্বার্থসিদ্ধির জন্যে) তােমাদের সাথে মিথ্যা কসম করছে, তারা ভাববে, (দুনিয়ার মতাে সেখানেও বুঝি এর মাধ্যমে) কিছু উপকার পাওয়া যাবে; (হে রাসূল,) আপনি (এদের থেকে সাবধান থাকুন,এরা কিন্তু মিথ্যাচারী 

১৯. (আসলে) শয়তান এদের ওপর পুরােপুরি প্রভাব বিস্তার করে নিয়েছে, শয়তান এদের আল্লাহর স্মরণ (সম্পূর্ণ) ভুলিয়ে দিয়েছে। এরা হচ্ছে শয়তানের দল; (হে রাসূল,) আপনি জেনে রাখুন, শয়তানের দলের ধ্বংস অনিবার্য

২০. যারা আল্লাহ পাক তার রাসূলের বিরুদ্ধাচরণ করে, তারা নিশ্চয়ই সেদিন চরম লাঞ্ছিতদের অন্তর্ভুক্ত হবে

২১. আল্লাহ পাক তাে () সিদ্ধান্ত (জানিয়েই) দিয়েছেন যে, আমি এবং আমার রাসূল নিশ্চয়ই জয়ী হবাে, নিঃসন্দেহে আল্লাহ পাক শক্তিমান পরাক্রমশালী। 

২২. (হে রাসূল!) আল্লাহ তা'আলা তাঁর রাসূলের ওপর ঈমান এনেছে এমন কোনাে জাতিকে আপনি কখনাে পাবেন যে, তারা এমন লােকদের ভালােবাসে যারা আল্লাহ পাক তাঁর রাসূলের বিরুদ্ধাচরণ করে, যদি সে (আল্লাহ বিরােধী) লােকেরা তাদের পিতা, ছেলে, ভাই কিংবা নিজেদের জাতি গােত্রের লােকও হয় (তবুও নয়); (আপসহীন) ব্যক্তিরাই হচ্ছে সেসব লােক, যাদের অন্তরে আল্লাহ পাক ঈমান (-এর ফয়সালা) এঁকে দিয়েছেন এবং নিজস্ব গায়বী মদদ দিয়ে তিনি ( পৃথিবীতে) তাদের শক্তি বৃদ্ধি করেছেন; কিয়ামতের দিন তিনি তাদের এমন এক জান্নাতে প্রবেশ করাবেন যার নিম্নদেশ দিয়ে ঝর্নাধারা প্রবাহিত হবে, তারা সেখানে অনন্তকাল থাকবে; (সর্বোপরি) আল্লাহ পাক তাদের ওপর প্রসন্ন হবেন এবং তারাও (সেদিন) তার ওপর সন্তুষ্ট হবে; এরাই হচ্ছে আল্লাহ পাকের নিজস্ব বাহিনী, আর হ্যা, আল্লাহর বাহিনীই (শেষতক) কামিয়াব হয়

 

 <<Previous Surah>>      << Home Page>>        <<Next Surah>>

*Inspired by the book of Abdullah Yusuf Ali

Post a Comment (0)
Previous Post Next Post