Surah Al Hadid (57) The Iron

 Surah Al Hadid

Assalamu walaikum brothers and sisters, if you want to know about Surah Al Hadid or you want to know the Surah Al Hadid in English or Surah Al Hadid in Bangla then you are in the right place. Here we learn about the  meaning of  Surah Al Hadid in three different languages Insallah

Surah Al Hadid


Surah Al Hadid in Arabic

بِسْمِ اللَّهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ
1. سَبَّحَ لِلَّهِ مَا فِي السَّمَاوَاتِ وَالْأَرْضِ ۖ وَهُوَ الْعَزِيزُ الْحَكِيمُ
2. لَهُ مُلْكُ السَّمَاوَاتِ وَالْأَرْضِ ۖ يُحْيِي وَيُمِيتُ ۖ وَهُوَ عَلَىٰ كُلِّ شَيْءٍ قَدِيرٌ
3. هُوَ الْأَوَّلُ وَالْآخِرُ وَالظَّاهِرُ وَالْبَاطِنُ ۖ وَهُوَ بِكُلِّ شَيْءٍ عَلِيمٌ
4. هُوَ الَّذِي خَلَقَ السَّمَاوَاتِ وَالْأَرْضَ فِي سِتَّةِ أَيَّامٍ ثُمَّ اسْتَوَىٰ عَلَى الْعَرْشِ ۚ يَعْلَمُ مَا يَلِجُ فِي الْأَرْضِ وَمَا يَخْرُجُ مِنْهَا وَمَا يَنْزِلُ مِنَ السَّمَاءِ وَمَا يَعْرُجُ فِيهَا ۖ وَهُوَ مَعَكُمْ أَيْنَ مَا كُنْتُمْ ۚ وَاللَّهُ بِمَا تَعْمَلُونَ بَصِيرٌ
5. لَهُ مُلْكُ السَّمَاوَاتِ وَالْأَرْضِ ۚ وَإِلَى اللَّهِ تُرْجَعُ الْأُمُورُ
6. يُولِجُ اللَّيْلَ فِي النَّهَارِ وَيُولِجُ النَّهَارَ فِي اللَّيْلِ ۚ وَهُوَ عَلِيمٌ بِذَاتِ الصُّدُورِ
7. آمِنُوا بِاللَّهِ وَرَسُولِهِ وَأَنْفِقُوا مِمَّا جَعَلَكُمْ مُسْتَخْلَفِينَ فِيهِ ۖ فَالَّذِينَ آمَنُوا مِنْكُمْ وَأَنْفَقُوا لَهُمْ أَجْرٌ كَبِيرٌ
8. وَمَا لَكُمْ لَا تُؤْمِنُونَ بِاللَّهِ ۙ وَالرَّسُولُ يَدْعُوكُمْ لِتُؤْمِنُوا بِرَبِّكُمْ وَقَدْ أَخَذَ مِيثَاقَكُمْ إِنْ كُنْتُمْ مُؤْمِنِينَ
9. هُوَ الَّذِي يُنَزِّلُ عَلَىٰ عَبْدِهِ آيَاتٍ بَيِّنَاتٍ لِيُخْرِجَكُمْ مِنَ الظُّلُمَاتِ إِلَى النُّورِ ۚ وَإِنَّ اللَّهَ بِكُمْ لَرَءُوفٌ رَحِيمٌ
10. وَمَا لَكُمْ أَلَّا تُنْفِقُوا فِي سَبِيلِ اللَّهِ وَلِلَّهِ مِيرَاثُ السَّمَاوَاتِ وَالْأَرْضِ ۚ لَا يَسْتَوِي مِنْكُمْ مَنْ أَنْفَقَ مِنْ قَبْلِ الْفَتْحِ وَقَاتَلَ ۚ أُولَٰئِكَ أَعْظَمُ دَرَجَةً مِنَ الَّذِينَ أَنْفَقُوا مِنْ بَعْدُ وَقَاتَلُوا ۚ وَكُلًّا وَعَدَ اللَّهُ الْحُسْنَىٰ ۚ وَاللَّهُ بِمَا تَعْمَلُونَ خَبِيرٌ
11. مَنْ ذَا الَّذِي يُقْرِضُ اللَّهَ قَرْضًا حَسَنًا فَيُضَاعِفَهُ لَهُ وَلَهُ أَجْرٌ كَرِيمٌ
12. يَوْمَ تَرَى الْمُؤْمِنِينَ وَالْمُؤْمِنَاتِ يَسْعَىٰ نُورُهُمْ بَيْنَ أَيْدِيهِمْ وَبِأَيْمَانِهِمْ بُشْرَاكُمُ الْيَوْمَ جَنَّاتٌ تَجْرِي مِنْ تَحْتِهَا الْأَنْهَارُ خَالِدِينَ فِيهَا ۚ ذَٰلِكَ هُوَ الْفَوْزُ الْعَظِيمُ
13. يَوْمَ يَقُولُ الْمُنَافِقُونَ وَالْمُنَافِقَاتُ لِلَّذِينَ آمَنُوا انْظُرُونَا نَقْتَبِسْ مِنْ نُورِكُمْ قِيلَ ارْجِعُوا وَرَاءَكُمْ فَالْتَمِسُوا نُورًا فَضُرِبَ بَيْنَهُمْ بِسُورٍ لَهُ بَابٌ بَاطِنُهُ فِيهِ الرَّحْمَةُ وَظَاهِرُهُ مِنْ قِبَلِهِ الْعَذَابُ
14. يُنَادُونَهُمْ أَلَمْ نَكُنْ مَعَكُمْ ۖ قَالُوا بَلَىٰ وَلَٰكِنَّكُمْ فَتَنْتُمْ أَنْفُسَكُمْ وَتَرَبَّصْتُمْ وَارْتَبْتُمْ وَغَرَّتْكُمُ الْأَمَانِيُّ حَتَّىٰ جَاءَ أَمْرُ اللَّهِ وَغَرَّكُمْ بِاللَّهِ الْغَرُورُ
15. فَالْيَوْمَ لَا يُؤْخَذُ مِنْكُمْ فِدْيَةٌ وَلَا مِنَ الَّذِينَ كَفَرُوا ۚ مَأْوَاكُمُ النَّارُ ۖ هِيَ مَوْلَاكُمْ ۖ وَبِئْسَ الْمَصِيرُ
16. أَلَمْ يَأْنِ لِلَّذِينَ آمَنُوا أَنْ تَخْشَعَ قُلُوبُهُمْ لِذِكْرِ اللَّهِ وَمَا نَزَلَ مِنَ الْحَقِّ وَلَا يَكُونُوا كَالَّذِينَ أُوتُوا الْكِتَابَ مِنْ قَبْلُ فَطَالَ عَلَيْهِمُ الْأَمَدُ فَقَسَتْ قُلُوبُهُمْ ۖ وَكَثِيرٌ مِنْهُمْ فَاسِقُونَ
17. اعْلَمُوا أَنَّ اللَّهَ يُحْيِي الْأَرْضَ بَعْدَ مَوْتِهَا ۚ قَدْ بَيَّنَّا لَكُمُ الْآيَاتِ لَعَلَّكُمْ تَعْقِلُونَ
18. إِنَّ الْمُصَّدِّقِينَ وَالْمُصَّدِّقَاتِ وَأَقْرَضُوا اللَّهَ قَرْضًا حَسَنًا يُضَاعَفُ لَهُمْ وَلَهُمْ أَجْرٌ كَرِيمٌ
19. وَالَّذِينَ آمَنُوا بِاللَّهِ وَرُسُلِهِ أُولَٰئِكَ هُمُ الصِّدِّيقُونَ ۖ وَالشُّهَدَاءُ عِنْدَ رَبِّهِمْ لَهُمْ أَجْرُهُمْ وَنُورُهُمْ ۖ وَالَّذِينَ كَفَرُوا وَكَذَّبُوا بِآيَاتِنَا أُولَٰئِكَ أَصْحَابُ الْجَحِيمِ
20. اعْلَمُوا أَنَّمَا الْحَيَاةُ الدُّنْيَا لَعِبٌ وَلَهْوٌ وَزِينَةٌ وَتَفَاخُرٌ بَيْنَكُمْ وَتَكَاثُرٌ فِي الْأَمْوَالِ وَالْأَوْلَادِ ۖ كَمَثَلِ غَيْثٍ أَعْجَبَ الْكُفَّارَ نَبَاتُهُ ثُمَّ يَهِيجُ فَتَرَاهُ مُصْفَرًّا ثُمَّ يَكُونُ حُطَامًا ۖ وَفِي الْآخِرَةِ عَذَابٌ شَدِيدٌ وَمَغْفِرَةٌ مِنَ اللَّهِ وَرِضْوَانٌ ۚ وَمَا الْحَيَاةُ الدُّنْيَا إِلَّا مَتَاعُ الْغُرُورِ
21. سَابِقُوا إِلَىٰ مَغْفِرَةٍ مِنْ رَبِّكُمْ وَجَنَّةٍ عَرْضُهَا كَعَرْضِ السَّمَاءِ وَالْأَرْضِ أُعِدَّتْ لِلَّذِينَ آمَنُوا بِاللَّهِ وَرُسُلِهِ ۚ ذَٰلِكَ فَضْلُ اللَّهِ يُؤْتِيهِ مَنْ يَشَاءُ ۚ وَاللَّهُ ذُو الْفَضْلِ الْعَظِيمِ
22. مَا أَصَابَ مِنْ مُصِيبَةٍ فِي الْأَرْضِ وَلَا فِي أَنْفُسِكُمْ إِلَّا فِي كِتَابٍ مِنْ قَبْلِ أَنْ نَبْرَأَهَا ۚ إِنَّ ذَٰلِكَ عَلَى اللَّهِ يَسِيرٌ
23. لِكَيْلَا تَأْسَوْا عَلَىٰ مَا فَاتَكُمْ وَلَا تَفْرَحُوا بِمَا آتَاكُمْ ۗ وَاللَّهُ لَا يُحِبُّ كُلَّ مُخْتَالٍ فَخُورٍ
24. الَّذِينَ يَبْخَلُونَ وَيَأْمُرُونَ النَّاسَ بِالْبُخْلِ ۗ وَمَنْ يَتَوَلَّ فَإِنَّ اللَّهَ هُوَ الْغَنِيُّ الْحَمِيدُ
25. لَقَدْ أَرْسَلْنَا رُسُلَنَا بِالْبَيِّنَاتِ وَأَنْزَلْنَا مَعَهُمُ الْكِتَابَ وَالْمِيزَانَ لِيَقُومَ النَّاسُ بِالْقِسْطِ ۖ وَأَنْزَلْنَا الْحَدِيدَ فِيهِ بَأْسٌ شَدِيدٌ وَمَنَافِعُ لِلنَّاسِ وَلِيَعْلَمَ اللَّهُ مَنْ يَنْصُرُهُ وَرُسُلَهُ بِالْغَيْبِ ۚ إِنَّ اللَّهَ قَوِيٌّ عَزِيزٌ
26. وَلَقَدْ أَرْسَلْنَا نُوحًا وَإِبْرَاهِيمَ وَجَعَلْنَا فِي ذُرِّيَّتِهِمَا النُّبُوَّةَ وَالْكِتَابَ ۖ فَمِنْهُمْ مُهْتَدٍ ۖ وَكَثِيرٌ مِنْهُمْ فَاسِقُونَ
27. ثُمَّ قَفَّيْنَا عَلَىٰ آثَارِهِمْ بِرُسُلِنَا وَقَفَّيْنَا بِعِيسَى ابْنِ مَرْيَمَ وَآتَيْنَاهُ الْإِنْجِيلَ وَجَعَلْنَا فِي قُلُوبِ الَّذِينَ اتَّبَعُوهُ رَأْفَةً وَرَحْمَةً وَرَهْبَانِيَّةً ابْتَدَعُوهَا مَا كَتَبْنَاهَا عَلَيْهِمْ إِلَّا ابْتِغَاءَ رِضْوَانِ اللَّهِ فَمَا رَعَوْهَا حَقَّ رِعَايَتِهَا ۖ فَآتَيْنَا الَّذِينَ آمَنُوا مِنْهُمْ أَجْرَهُمْ ۖ وَكَثِيرٌ مِنْهُمْ فَاسِقُونَ
28. يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا اتَّقُوا اللَّهَ وَآمِنُوا بِرَسُولِهِ يُؤْتِكُمْ كِفْلَيْنِ مِنْ رَحْمَتِهِ وَيَجْعَلْ لَكُمْ نُورًا تَمْشُونَ بِهِ وَيَغْفِرْ لَكُمْ ۚ وَاللَّهُ غَفُورٌ رَحِيمٌ
29. لِئَلَّا يَعْلَمَ أَهْلُ الْكِتَابِ أَلَّا يَقْدِرُونَ عَلَىٰ شَيْءٍ مِنْ فَضْلِ اللَّهِ ۙ وَأَنَّ الْفَضْلَ بِيَدِ اللَّهِ يُؤْتِيهِ مَنْ يَشَاءُ ۚ وَاللَّهُ ذُو الْفَضْلِ الْعَظِيمِ

 

Surah Al Hadid in English

Madani Surah, Verse- 29; Section- 4

In the name of Allah, Most Gracious, Most Merciful.

1.    Whatever is in the heavens and on earth,- let it declare the Praises and Glory of Allah: for He is the Exalted in Might, the Wise.

2.    To Him belongs the dominion of the heavens and the earth: It is He Who gives Life and Death; and He has Power over all things.

3.    He is the First and the Last, the Evident and the Immanent: and He has full knowledge of all things.

4.    He it is Who created the heavens and the earth in Six Days, and is moreover firmly established on the Throne (of Authority). He knows what enters within the earth and what comes forth out of it, what comes down from heaven and what mounts up to it. And He is with you where so ever you may be. And Allah sees well all that you do.

5.    To Him belongs the dominion of the heavens and the earth: and all affairs are referred back to Allah.

6.    He merges Night into Day, and He merges Day into Night; and He has full knowledge of the secrets of (all) hearts.

7.    Believe in Allah and His messenger, and spend (in charity) out of the (substance) whereof He has made you heirs. For, those of you who believe and spend (in charity),- for them is a great Reward.

8.    What cause have you why you should not believe in Allah?- and the Messenger invites you to believe in your Lord, and has indeed taken your Covenant, if you are men of Faith.

9.    He is the One Who sends to His Servant Manifest Signs, that He may lead you from the depths of Darkness into the Light and verily Allah is to you most kind and Merciful.

10. And what cause have you why you should not spend in the cause of Allah?- For to Allah belongs the heritage of the heavens and the earth. Not equal among you are those who spent (freely) and fought, before the Victory, (with those who did so later). Those are higher in rank than those who spent (freely) and fought afterwards. But to all has Allah promised a goodly (reward). And Allah is well acquainted with all that you do.

11. Who is he that will Loan to Allah a beautiful loan? for (Allah) will increase it manifold to his credit, and he will have (besides) a liberal Reward.

12. One Day shalt you see the believing men and the believing women- how their Light runs forward before them and by their right hands: (their greeting will be): "Good News for you this Day! Gardens beneath which flow rivers! to dwell therein for aye! This is indeed the highest Achievement!"

13. One Day will the Hypocrites- men and women - say to the Believers: "Wait for us! Let us borrow (a Light) from your Light!" It will be said: "Turn you back to your rear! then seek a Light (where you can)!" So a wall will be put up betwixt them, with a gate therein. Within it will be Mercy throughout, and without it, all alongside, will be (Wrath and) Punishment!

14. (Those without) will call out, "Were we not with you?" (The others) will reply, "True! but you led yourselves into temptation; you looked forward (to our ruin); you doubted (Allah´s Promise); and (your false) desires deceived you; until there issued the Command of Allah. And the Deceiver deceived you in respect of Allah.

15. "This Day shall no ransom be accepted of you, nor of those who rejected Allah." Your abode is the Fire: that is the proper place to claim you: and an evil refuge it is!"

16. Has not the Time arrived for the Believers that their hearts in all humility should engage in the remembrance of Allah and of the Truth which has been revealed (to them), and that they should not become like those to whom was given Revelation aforetime, but long ages passed over them and their hearts grew hard? For many among them are rebellious transgressors.

17. Know you (all) that Allah gives life to the earth after its death! already have We shown the Signs plainly to you, that you may learn wisdom.

18. For those who give in Charity, men and women, and loan to Allah a Beautiful Loan, it shall be increased manifold (to their credit), and they shall have (besides) a liberal reward.

19. And those who believe in Allah and His messengers- they are the Sincere (lovers of Truth), and the witnesses (who testify), in the eyes of their Lord: They shall have their Reward and their Light. But those who reject Allah and deny Our Signs,- they are the Companions of Hell-Fire.

20. Know you (all), that the life of this world is but play and amusement, pomp and mutual boasting and multiplying, (in rivalry) among yourselves, riches and children. Here is a similitude: How rain and the growth which it brings forth, delight (the hearts of) the tillers; soon it withers; you wilt see it grow yellow; then it becomes dry and crumbles away. But in the Hereafter is a Penalty severe (for the devotees of wrong). And Forgiveness from Allah and (His) Good Pleasure (for the devotees of Allah). And what is the life of this world, but goods and chattels of deception?

21. Be you foremost (in seeking) Forgiveness from your Lord, and a Garden (of Bliss), the width whereof is as the width of heaven and earth, prepared for those who believe in Allah and His messengers: that is the Grace of Allah, which He bestows on whom he pleases: and Allah is the Lord of Grace abounding.

22. No misfortune can happen on earth or in your souls but is recorded in a decree before We bring it into existence: That is truly easy for Allah:

23. In order that you may not despair over matters that pass you by, nor exult over favours bestowed upon you. For Allah loves not any vainglorious boaster,-

24. Such persons as are covetous and commend covetousness to men. And if any turn back (from Allah´s Way), verily Allah is Free of all Needs, Worthy of all Praise.

25. We sent aforetime our messengers with Clear Signs and sent down with them the Book and the Balance (of Right and Wrong), that men may stand forth in justice; and We sent down Iron, in which is (material for) mighty war, as well as many benefits for mankind, that Allah may test who it is that will help, Unseen, Him and His messengers: For Allah is Full of Strength, Exalted in Might (and able to enforce His Will).

26. And We sent Noah and Abraham, and established in their line Prophet hood and Revelation: and some of them were on right guidance. But many of them became rebellious transgressors.

27. Then, in their wake, We followed them up with (others of) Our messengers: We sent after them Jesus the son of Mary, and bestowed on him the Gospel; and We ordained in the hearts of those who followed him Compassion and Mercy. But the Monasticism which they invented for themselves, We did not prescribe for them: (We commanded) only the seeking for the Good Pleasure of Allah; but that they did not foster as they should have done. Yet We bestowed, on those among them who believed, their (due) reward, but many of them are rebellious transgressors.

28. O you that believe! Fear Allah, and believe in His Messenger, and He will bestow on you a double portion of His Mercy: He will provide for you a Light by which you shall walk (straight in your path), and He will forgive you (your past): for Allah is Oft-Forgiving, Most Merciful.

29. That the People of the Book may know that they have no power whatever over the Grace of Allah, that (His) Grace is (entirely) in His Hand, to bestow it on whomsoever He wills. For Allah is the Lord of Grace abounding.

 <<Previous Surah>>      << Home Page>>        <<Next Surah>>

Surah Al Hadid in Bangla

মাদানী সূরা, আয়াত- 29; রুকু- 4

পরম করুণাময় অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে

রুকূ

. আকাশমণ্ডলী পৃথিবীতে যা কিছু আছে তার সব কিছুই আল্লাহ পাকের পবিত্রতা এবং মাহাত্ম্য ঘােষণা করে, তিনি মহাপরাক্রমশালী প্রজ্ঞাময়

. আসমানসমূহ যমীনের সার্বভৌমত্ব তারই জন্যে, তিনি জীবন দান করেন, তিনিই মৃত্যু ঘটান, তিনি সব কিছুর ওপর চূড়ান্ত ক্ষমতাবান

. তিনি আদি, তিনি অন্ত, তিনি প্রকাশ্য, তিনি অপ্রকাশ্য এবং তিনি সর্ববিষয়ে সঠিক জ্ঞান রাখেন

. তিনি হচ্ছেন সেই মহান সত্ত্বা, যিনি ছয় দিনে আসমানসমূহ যমীন সৃষ্টি করেছেন, অতঃপর তিনি তার আরশে সমাসীন হন; তিনি জানেন যা কিছু জমিনের ভেতরে প্রবেশ করে, (আবার) যা কিছু জমিন থেকে বেরিয়ে আসে, আসমান থেকে যা বর্ষিত হয় (তা যেমন তিনি জানেন- আবার) আসমানের দিকে যা কিছু ওঠে তাও (তিনি অবগত আছেন); তােমরা যেখানেই থাকো না কেন তিনি তােমাদের সাথেই আছেন; তােমরা যা কিছু করছাে আল্লাহ পাক তার সব কিছুই দেখেন

. আসমানসমূহ যমীনের সার্বভৌমত্ব তার জন্যে, প্রতিটি বিষয়কে তার দিকেই ফিরিয়ে নেয়া হবে

. তিনি রাতকে মিশিয়ে দেন দিনের সাথে, (আবার) দিনকে মিশিয়ে দেন রাতের সাথে; তিনি মনের কোণে লুকিয়ে থাকা বিষয় সম্পর্কেও সম্যক অবগত রয়েছেন

. (হে মানুষ,) তােমরা ঈমান আনাে আল্লাহ পাক তাঁর রাসূলের ওপর, আল্লাহ পাক তােমাদের যে সম্পদের অধিকারী বানিয়েছেন তা থেকে (তারই পথে) তােমরা ব্যয় কর; অতঃপর তােমাদের মধ্যে যারা ঈমান আনবে এবং (আল্লাহর নির্ধারিত পথে) অর্থ ব্যয় করবে, জেনে রেখাে, তাদের জন্যে (রয়েছে) এক মহাপুরষ্কার

. তােমাদের কি হলাে, তােমরা কেন আল্লাহর ওপর ঈমান আনছাে না? (বিশেষ করে) যখন (স্বয়ং অল্লাহর) রাসূল তােমাদের ডাক দিয়ে বলেছেন, তােমরা তােমাদের প্রভুর উপর ঈমান আনাে এবং তিনি তাে ( মর্মে) তােমাদের কাছ থেকে প্রতিশ্রুতিও আদায় করে নিয়েছিলেন, যদি তােমার সত্যিই ঈমানদার হও (তাহলে সেই ওয়াদা পালন কর)

. তিনিই সে মহান প্রভু যিনি তাঁর বান্দার ওপর সুস্পষ্ট আয়াতসমূহ অবতীর্ণ করেছেন, যেন তিনি তােমাদের (এর দ্বারা জাহেলিয়াতের) অন্ধকার থেকে (ঈমানের) আলাের দিকে বের করে নিতে পারেন; আল্লাহ পাক তােমাদের প্রতি পরম দয়ালু একান্ত করুণাময়

১০. তােমাদের কি হলাে, তােমরা কেন আল্লাহর পথে অর্থ ব্যয় করতে চাও, অথচ আসমানসমূহ যমীনের সব কিছুর প্রভু তাে আল্লাহ পাকের জন্যেই; তােমাদের মধ্যে তারা কখনাে একই রকম (মর্যাদার অধিকারী) হবে না, যারা বিজয় সাধিত হওয়ার আগে (আল্লাহর পথে) ব্যয় করেছে এবং (ময়দানেও) সংগ্রাম করেছে; তাদের মর্যাদা ওদের তুলনায় অনেক বেশী যারা বিজয় সাধিত হবার পর আল্লাহর পথে অর্থ ব্যয় করেছে এবং জেহাদে অংশগ্রহণ করেছে (অবশ্য) আল্লাহ পাক এদের সবাইকেই উত্তম পুরস্কার প্রদানের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন; তােমরা যা কিছুই কর আল্লাহ পাক সে সম্পর্কে পূর্ণাংগভাবে জ্ঞাত রয়েছেন

রুকূ 2

 

১১. কে আছে যে ব্যক্তি আল্লাহকে ঋণ দেবে- (এমন) উত্তম ঋণ, (যার বিনিময়) আল্লাহ পাক (পরকালে) তাকে কয়েকগুণ বাড়িয়ে দেবেন এবং তার জন্যে (থাকবে আরাে) বড় ধরনের পুরস্কার

১২. যেদিন আপনি ঈমানদার পুরুষ ঈমানদার মহিলাদের এগিয়ে যেতে দেখতে পাবেন (দেখবেন) তাদের সামনে দিয়ে এবং তাদের ডান পাশ দিয়ে নূরের এক জ্যোতিও এগিয়ে চলেছে, ( সময় তাদের উদ্দেশ্যে বলা হবে), আজ সুখবর তােমাদের জন্যে (আর সে সুসংবাদটি হচ্ছে) বেহেশতের, যার নিম্নদেশ দিয়ে (সুপেয়) ঝর্নাধারা বইতে থাকবে, সেখানে (তােমরা) অবস্থান করবে অনন্তকাল ধরে; আর এটা হচ্ছে চরম সাফল্য

১৩. সেদিন মুনাফিক পুরুষ মুনাফিক নরীরা ঈমানদারদের বলবে, তােমরা আমাদের দিকে একটু তাকাও, যাতে করে আমরা তােমাদের নূর থেকে কিছুটা হলেও আলাে গ্রহণ করতে পারি, তাদের বলা হবে, তােমরা (আজ) পেছনে ফিরে যাও এবং (পারলে সেখানে গিয়ে) আলাের সন্ধান কর; অতঃপর এদের (উভয়ের) মাঝখানে একটি প্রাচীর দাড় করিয়ে দেয়া হবে, এতে একটি দরজাও থাকবে; যার ভেতরের দিকে থাকবে (আল্লাহর) রহমত, আর তার বাইরের দিকে থাকবে (ভয়াবহ) শাস্তি;

১৪. তখন মুনাফিক দল ঈমানদারদের ডেকে বলবে আমরা কি (দুনিয়ার জীবনে) তােমাদের সাথী ছিলাম না, তারা বলবে, হা (নিশ্চয়ই ছিলে), তবে তােমরা নিজেরাই নিজেদের (গােমরাহীর বিপদে) বিপদগ্রস্ত করে দিয়েছিলে, তােমরা (সব সময় সুযােগের) অপেক্ষায় থাকতে, (নানা রকমের) সন্দেহ পােষণ করতে, (আসলে দুনিয়ার) মােহ তােমাদের সব সময়ই প্রতারিত করে রেখেছিলাে, আর এভাবে একদিন (তােমাদের ব্যাপারে) আল্লাহর (পক্ষ থেকে মৃত্যুর) ফয়সালা এসে উপস্থিত হলাে এবং সে (প্রতারক শয়তান) তােমাদের আল্লাহ পাক সম্পর্কেও ধােকায় ফেলে রেখেছিলাে

১৫. অতঃপর গ্রহণ করা হবে না, আর না তাদের কাছ থেকে কোনাে রকম মুক্তিপণ গ্রহণ করা হবে যারা আল্লাহ পাককে অস্বীকার করেছে; (আজ) তােমাদের উভয়ের) ঠিকানা হবে (দোযখের) আগুন; (আর ) আগুনই হবে (এখানে) তােমাদের (একমাত্র) সাথী; কত নিকৃষ্ট তােমাদের () পরিণাম

১৬. ঈমানদারদের জন্যে এখনাে কি সে ক্ষণটি এসে পৌছেনি যে, আল্লাহর (শাস্তির) স্মরণে, আল্লাহ পাক যে সঠিক (কিতাব) অবতীর্ণ করেছেন তার স্মরণে তাদের অন্তরসমূহ বিগলিত হয়ে যাবে এবং সে (কখনােই তাদের মতাে হবে না, যাদের কাছে এর আগে আল্লাহর কিতাব অবতীর্ণ করা হয়েছিলাে, অতঃপর তাদের ওপর এক দীর্ঘকাল অতিবাহিত হয়ে গেলাে, যার ফলে তাদের মনও কঠিন হয়ে গেলাে; এদের মধ্যে এক বিরাট অংশই নাফরমান (থেকে গেলাে)

১৭. তােমরা জেনে রেখাে, আল্লাহ পাকই ভূমিকে তার মৃত্যুর পর পুনরায় জীবন দান করেন; নিশ্চয়ই আমি (আমার) যাবতীয় নিদর্শন তােমাদের জন্যে খুলে খুলে বর্ণনা করেছি, যাতে তােমরা অনুধাবন করতে পারাে

১৮. যেসব পুরুষ নারী (অকাতরে আল্লাহর পথে) দান করে এবং আল্লাহকে উত্তম ঋণ প্রদান করে, তাদের (সে ঋণ) আল্লাহ পাকের পক্ষ থেকে) বহু গুণ বাড়িয়ে দেয়া হবে, (উপরন্তু) তাদের জন্যে (থাকবে আরাে) সম্মানজনক প্রতিদান

১৯. আর যারা আল্লাহর ওপর ঈমান এনেছে, ঈমান এনেছে তাঁর রাসূলের ওপর, তারাই হচ্ছে যথার্থ সত্যবাদী, যারা তাদের প্রভুর সামনে সত্যের পক্ষে সাক্ষ্য দান করবে, তাদের সবার জন্যে (রয়েছে) তাদের প্রভুর পক্ষ থেকে) পুরস্কার এবং তাদের নিজেদের নূর (-, যা তাদের সাফল্যের প্রমাণ বহন করবে, অপরদিকে), যারা আমাকে অস্বীকার করেছে এবং আমার নিদর্শনসমূহ মিথ্যা সাব্যস্ত করেছে তারা হবে দোযখের বাসিন্দা

রুকূ

২০. তােমরা জেনে রাখাে, দুনিয়ার জীবন খেলাধূলা, (হাসি) তামাশা জাকজমক (প্রদর্শন), পরস্পর অহঙ্কার

প্রদর্শনের প্রতিযােগিতা, ধন সম্পদ সন্তান সন্ততি বাড়ানের চেষ্টা সাধনা ব্যতীত আর কিছুই নয়; (সমগ্র বিষয়টা) যেন আকাশ থেকে বষিত (এক পশলা) বষ্টি যার (উৎপাদিত) ফসলের সমাহার কৃষকের মনকে খুশীতে ভরে দেয়, অতঃপর (একদিন) তা শুকিয়ে যায় এবং আস্তে আস্তে আপনি দেখতে পান, তা হলুদ রং ধারণ করতে শুরু করেছে, তারপর তা (অর্থহীন) খড়কুটায় পরিণত হয়ে যায়; (কাফেরদের জন্যে দুনিয়ার জীবনের চেষ্টা সাধনা এমনি এক অর্থহীন কাজ ব্যতীত আর কিছুই নয়); আর পরকালের জীবনে (তাদের জন্যে থাকবে) কঠোর শাস্তি এবং (ঈমানদারদের জন্যে থাকবে) আল্লাহর পক্ষ থেকে (তার) ক্ষমা সন্তুষ্টি; (সত্যি কথা হচ্ছে,) দুনিয়ার জীবন কতিপয় ধােকা প্রতারণার সামগ্রী বৈ কিছুই নয়

২১. (অতএব, সব অর্থহীন প্রতিযােগিতা বাদ দিয়ে) তােমরা তােমাদের প্রভুর পক্ষ থেকে সেই (প্রতিশ্রুত) ক্ষমা চিরন্তন বেহেশ্ত পাওয়ার জন্যে এগিয়ে যাও, (এমন বেহেস্ত) যার আয়তন আসমান যমীনের সমান প্রশস্ত, তা প্রস্তুত করে রাখা হয়েছে সে সব মানুষদের জন্যে, যারা আল্লাহ পাক তাঁর (পাঠানাে) রাসূলের ওপর ঈমান এনেছে; (মূলত) হচ্ছে আল্লাহ পাকের এক অনুগ্রহ, যাকে তিনি চান তাকেই তিনি অনুগ্রহ প্রদান করেন; আর আল্লাহ পাক হচ্ছেন মহা অনুগ্রহশীল

২২. (সামগ্রিকভাবে গােটা) দুনিয়ার ওপর কিংবা (ব্যক্তিগতভাবে) তােমাদের ওপর যখনি কোনাে বিপর্যয় আসে, তাকে অস্তিত্ব দান করার (বহু) আগেই তার বর্ণনা একটি গ্রন্থে লেখা থাকে, আর আল্লাহ পাকের জন্যে কাজ অত্যন্ত সহজ,

২৩. (আগেই লিখে রাখার ব্যবস্থাটি জন্যেই রাখা হয়েছে যাতে করে তােমাদের কাছ থেকে যা কিছু সুযােগ সুবিধা) হারিয়ে গেছে তার জন্যে তােমরা আফসােস না করএবং আল্লাহ পাক তােমাদের যাকিছুদিয়েছেন তাতেও যেন তােমরা বেশী হর্ষোৎফুল্ল না হও; আল্লাহ পাক এমন সব লােকদের ভালােবাসেন যারা ঔদ্ধত্য অহঙ্কার প্রদর্শন করে

২৪. (আল্লাহ পাক তাদেরও ভালােবাসেন) যারা নিজেরা কার্পণ্য করে, আবার অন্যদেরও কার্পণ্য করার আদেশ দেয়; যে ব্যক্তি (জেনে বুঝে আল্লাহর হুকুম থেকে) মুখ ফিরিয়ে নেয় (তার জানা উচিত), আল্লাহ পাক কারােই মুখাপেক্ষী নন এবং তিনি মহান প্রশংসায় প্রশংসিত(আসলে) তারা নিজেরাই এর উদ্ভব ঘটিয়েছে, আমি কখনাে এটা তাদের জন্যে নির্ধারণ করিনি, (আমি তাদের শুধু বলেছিলাম) আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন করতে, অতঃপর তারা এর যথাযথ হক আদায় করেনি, তারপর তাদের মধ্যে যারা ঈমান এনেছে তাদের আমি (যথার্থ) পুরস্কার দিয়েছি, কিন্তু তাদের অধিকাংশ লােকই ছিলাে নাফরমান

২৮. হে ঈমানদার বান্দারা, তােমরা আল্লাহ পাককে ভয় কর এবং তার পাঠানাে রাসূলের ওপর ঈমান আনাে, এর ফলে আল্লাহ পাক তােমাদের দ্বিগুণ অনুগ্রহেভূষিত করবেন, তিনি তােমাদের জন্যে স্থাপন করবেন সেই আলাে, যার সাহায্যে তােমরা পথ চলতে সক্ষম হবে, (উপরন্তু) তিনি তােমাদের (যাবতীয় পাপ খাতা) মাফ করে দেবেন; আল্লাহ পাক ক্ষমাশীল পরম দয়ালু,

২৯. আহলে কিতাবরা যেন একথাটা (ভালাে করে) জেনে নিতে পারে, আল্লাহ পাকের সামান্যতম অনুগ্রহের ওপরও তাদের কোনাে অধিকার নেই; যাবতীয় অনুগ্রহ! সে তাে সম্পূর্ণ আল্লাহ পাকেরই হাতে, তিনি যাকে ইচ্ছা তাকেই অনুগ্রহ দান করেন; (মূলত) আল্লাহ পাক সুমহান অনুগ্রহশীল

<<Previous Surah>>      << Home Page>>        <<Next Surah>>
*Inspired by the book of Abdullah Yusuf Ali
Post a Comment (0)
Previous Post Next Post